ক্যানসার একে একে কেড়ে নিল দরিদ্র পরিবারের ৬ সদস্যের জীবন

আব্দুর রশিদ বলেন, তিনি ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার ইকড়া গ্রামের আকবার আলীর মেয়ে সাহিদা বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর একে একে তিন ছেলে আর দুই মেয়ে হয়। ২০ বছর আগে স্ত্রী সাহিদা স্তন ক্যানসারে মারা যান। এরপর ছেলে আর পুত্রবধূদের নিয়ে চলছিল তাঁর জীবন। স্ত্রীর মৃত্যুর ছয় বছর পর বড় ছেলে রবিউল ইসলামের (৩০) মাথায় টিউমার হয়। মাত্র এক মাসের মধ্যে তিনি মারা যান। এর ১৪ বছর পর স্তন ক্যানসার ধরা পড়ে বড় মেয়ে খালেদা খাতুনের। তখন তাঁর বয়স ২৮ বছর। এক বছর চিকিৎসাধীন থেকে খালেদাও মারা যান। খালেদার মৃত্যুর এক বছর পর স্তন ক্যানসারেই আক্রান্ত হন ছোট মেয়ে সেলিনা খাতুনও (২৪)। ৫ মাসের চিকিৎসা শেষে সেলিনাও মারা গেছেন। চার বছর আগে ছোট ছেলে সফি উদ্দিন (২০) যকৃৎ ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।
0 0 vote
Article Rating